Facebook Page Monetization
Facebook Page Monetization

ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন (Facebook Page Monetization) করে ইউটিউবের চেয়ে বেশি অর্থোপার্জন করা যায়। ইউটিউব ক্রিয়েটরদের যত শতাংশ পেমেন্ট করেন তার চেয়ে বেশি ফেসবুকে পেমেন্ট করে থাকেন। আমি নিজেও ইউটিউব চ্যানেল নিয়ে অনেকদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছি। বলা যায় ইউটিউবের চেয়ে ফেসবুকের শর্ত অনেক সহজ। অপর দিকে ফেসবুকের ভিডিও মার্কেটিংয়ের একাধিক উপায় থাকায় সহজে ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন পাওয়া যায়।

সহজ বলতে বিষয়টা এমন না যে, আপনি একটা পেইজ তৈরি করলেন আর ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন (Facebook Page Monetization) দিয়ে দিল৷ আসলে পৃথিবীতে অথোপার্জনের কোনো উপায় সহজ নয়। তবে যারা চেষ্টা করে তারা যা ইচ্ছে তা করে উপার্জন করতে পারেন। সুতরাং আপনিও যদি ফেসবুক পেইজ মনিটাইজ করে উপার্জন করতে চান, তাহলে আজকের লেখাটি আপনার জন্য।

Facebook Page Monetization (2)
Facebook Page Monetization (2)

ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন (Facebook Page Monetization) করার পদ্ধতি:

আপনি যখন শর্ত নিয়ে চিন্তা করবেন, তখন হাজার হাজার শর্ত খোঁজে পাবেন। শর্ত তারাই খোঁজেন যারা কাজের জন্য অযোগ্য। সুতরাং আপনি যদি ক্রিয়েটিভ এবং পরিশ্রমী হয়ে থাকেন, তাহলে সাধারণ কয়েকটি শর্ত পূরণ করে আপনি ফেসবুক থেকে আয় করতে পারেন। চলুন আলোচনা করা যাক, ফেসবুক পেইজ মরিটাইজেশন করার জন্য আপনাকে কাজ করতে হবে তা নিয়ে।

১. দশ হাজার ফলোয়ার সংগ্রহ করা:

ফেসবুকের দেওয়া শর্তানুযায়ী আপনাকে প্রথমে দশ হাজার ফলোয়ার সংগ্রহ করতে হবে। আপনার পেইজে যদি দশ হাজার ফলোয়ার হয়ে যায় তাহলে আপনি ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন (Facebook Page Monetization) পাবেন। তবে দশ হাজার ফলোয়ার ছাড়াও আপনাকে আরও কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। সবার জন্য প্রথম দশ হাজার ফলোয়ার সংগ্রহ করার কাজটা খুবই কঠিন হয়ে থাকে। এজন্যই অনেকেই এই কাজে ব্যর্থ হয়ে থাকে। প্রকৃতপক্ষে আপনি যদি একটু কৌশল অনুসরণ করতে পারেন, তাহলে এটা একদম কঠিন কাজ নয়।

ফলোয়ার পাওয়ার জন্য আপনাকে ফেসবুক মার্কেটিংয়ের বেসিক শিখতে হবে। আপনি যদি বেসিক মার্কেটিং শিখে যান, তাহলে সহজে দশ হাজার ফলোয়ার সংগ্রহ করতে পারবেন। কোয়ালিটি কন্টেন্ট হচ্ছে ফেসবুক মার্কেটিংয়ের পাওয়ার। ফেসবুকে আপনি প্রতিদিন ছোট ছোট কিছু কন্টেন্ট বিভিন্ন গ্রুপের মধ্যে শেয়ার করতে পারেন। গ্রুপ হয়ে দশ হাজার ফলোয়ার সংগ্রহ করার উপযুক্ত প্লাটফর্ম।

২. নিয়মিত ভিডিও কন্টেন্ট আপলোড করা:

একটু আগেই বলেছিলাম। কন্টেন্ট হচ্ছে অনলাইন জগতে রাজত্ব করার মূল শক্তি। আপনি যত ভালো কন্টেন্ট তৈরি করতে পারবেন ততই দ্রুত আপনি সফলতা পাবেন। ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন (Facebook Page Monetization) করতে চাইলে আপনাকে তিন মিনিট বা তিন মিনিটের থেকে বড় ভিডিও আপলোড করতে হবে। তিন মিনিটের চেয়ে ছোট ভিডিওগুলোর ভিউ গণনা করা হবে না। সুতরাং ভিডিও ভিউ বৃদ্ধি করতে ও বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য উপযুক্ত করতে প্রতিটি ভিডিও তিন মিনিটের চেয়ে বড় হতে হবে।

৩. ৩ মাসের মধ্যে ৩০ হাজার মিনিট ভিডিও দেখতে হবে:

আপনি যে ভিডিও কন্টেন্ট আপলোড করবেন সেগুলো যখন ভিউয়াররা দেখবে, তখন ভিডিও ওয়াচ টাইম গণনা করা হবে। এক মিনিটের কম সময় দেখা ভিডিওর ওয়াচ টাইম গণনা করা হবে না। যে ভিউয়ার কোনো ভিডিও এক মিনিটের বেশি সময় ধরে দেখবে শুধুমাত্র তার ওয়াচ টাইম গণনা করা হবে। এভাবে আপনাকে ৩ মাসের মধ্যে ৩০ হাজার মিনিট ওয়াচ টাইম সংগ্রহ করতে হবে। এভাবেই আপনাকে ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন করতে চাইলে শর্ত সমূহ পূরণ করতে হবে।

কিভাবে বুঝবেন Facebook Page Monetization এর সকল শর্ত পূরণ করেছেন কি-না?

এটা একদম সহজ। আপনি যখন ফেসবুক ক্রিয়েটর পেইজে যাবেন, তখন সবকিছুর এনালাইটিকস দেখতে পাবেন। আপনার সকল বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন হলে অটোমেটিক ফেসবুক আপনাকে মনিটাইজেশন সেট-আপ করার মেসেজ দিবে। ফেসবুকের কাছ থেকে জানানো হলেই আপনি ফেসবুক পেইজ মনিটাইজেশন করে অর্থোপার্জন করতে পারবেন।

কিভাবে উপার্জিত টাকা হাতে পাবেন?

বর্তমানে একাধিক উপায়ে ফেসবুক ক্রিয়েটরদের টাকা প্রদান করে যাচ্ছে। আপনি নিজের দেশের যেকোনো লোকাল বা জাতীয় ব্যাংকের মাধ্যমে উপার্জিত টাকা উঠাতে পারবেন। এবিষয়ে আরো জানার থাকলে কমেন্ট প্রশ্ন করতে থাকুন, আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে।

Leave a Reply