কিভাবে ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিয়ে আসবেন
কিভাবে ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিয়ে আসবেন

যে কোন ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নেওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো এসইও করা। তাই আজকের লেখাতে আমি আপনাকে বলবো ফ্রি ভিজিটর নিয়ে আসার কিছু এসইও টিপস। আপনি যদি চান আপনার ওয়েবসাইটে ফ্রি-তে ভিজিটর আসুক, তাহলে আপনি আজকের লেখাটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

আপনি এসইও এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিয়ে এসে খুব দ্রুত জনপ্রিয় করে তুলতে পারেন আপনার প্রিয় ওয়েবসাইট বা ব্লগটিকে। এই ফ্রি ভিজিটর গুলো নিয়ে আসার জন্য আপনাকে কোন টাকা দিতে হবেনা। বরং আপনি এই ভিজিটর থেকে আরও বেশি টাকা আয় করতে পারবেন। আপনি যদি আমার কথা বুঝতে পারেন এবং কাজ করেন। আজকের পর আপনাকে আর ফ্রি ভিজিটরের জন্য অন্য কোন ওয়েবসাইটের পোস্ট খুঁজতে হবেনা।

ব্লগে ফ্রি ভিজিটর:

গুগলসহ অন্যান্য যেকোন সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ রেজাল্টের প্রথম পাতায় আপনার ওয়েবসাইট নিয়ে আসতে পারলে, আপনি আপনার সাইটে অনেক ভিজিটর পাবেন। আর সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় আসার জন্য ওয়েবসাইট এসইও করতে হবে। ওয়েবসাইটে এসইও করলে আপনি সহজেই গুগলের প্রথম পেজে চলে আসবেন। যদি কোনভাবে সঠিক এসইও করে আপনি গুগল এর বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় চলে আসেন। তাহলে আপনার নতুন ব্লগ খুব সহজেই জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। আর তাই ওয়েবসাইটের জন্য এসইও খুব প্রয়োজনীয়।

কিভাবে ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর
Image source: Pixabay

কেন আপনার ওয়েবসাইট এসইও করবেন?

এসইও এর মানে আমরা সবাই জানি। তাও একটু বলি এসইও (SEO) মানে হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। অর্থাৎ ওয়েবসাইট বা ব্লগকে সার্চ ইঞ্জিনে যাতে সহজেই বুঝতে পারে বা পরিচয় হতে পারে সেই ব্যবস্থা করা।

মৌলিক দিক থেকে এসইও তিন প্রকার হয়ে থাকে:

১. অন পেজ এসইও এবং ২. অফ পেজ এসইও এবং ৩. টেকনিক্যাল এসইও।

অন পেজ এসইও করে কিভাবে ফ্রি ভিজিটর পাবেন?

আপনি ওয়েবসাইটে যা যা অপটিমাইজ করবেন তাকে অন পেজ এসইও বলে। পোস্ট লিখা, ডিজাইন করা ইত্যাদি সবকিছুকে একসাথে বলা  হচ্ছে অন পেজ এসইও।

কিভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট ডিজাইন করবেন?

অন পেজ এসইও এর জন্য আপনাকে প্রথমেই ওয়েবসাইটের জন্য ভালো একটি ডিজাইন করতে হবে। যাতে ইউজাররা সহজেই ভিজিট করে সন্তুষ্ট থাকতে পারেন। এবং যেন সাইট ভিজিট করতে তাদের কোন কষ্ট করতে না হয়।

সাইট স্পীড ও গুগল র‍্যাংকিং:

আপনার সাইট স্পীড বা গতি গুগল র‍্যাংকিংয়ের জন্য খুবই বড় একটি ফেক্টর। এটা আমি নিজে উপলব্ধি করেছি। সাইটের স্পীড ভালো থাকলে সার্চ রেজাল্টের প্রথমে চলে আসতে সময় লাগবে না। যদিও আমি বর্তমানে পেইড থিম করছি কিন্তু কিছু কারণে স্পিড একটু কম। তার জন্য আমি খুবই দুঃখিত!

তাই ওয়েবসাইট বা ব্লগ এমনভাবে ডিজাইন করতে হবে, যাতে আপনার সাইট ভিজিট করতে খুবই কম সময় লাগে। এছাড়া সাইটের লোডিং স্পীড কমাতে গুগল (AMP) ভার্সন ব্যবহার করতে পারেন। এজন্য যেকোন একটি AMP প্লাগিন ইন্সটল করে নিলে আপনার জন্য কাজ হয়ে যাবে।

গুগল AMP ভার্সন ব্যবহার করলে আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। আপনার সার্চ র‍্যাংকিং ১০০% উন্নতি হচ্ছে। আমি নিজে এটার সাক্ষী। তাই এটা ব্যবহার করুন। এর জন্য আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ফ্রি ভিজিটর পাবেন।

কিভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট লিখবেন?

একটা ওয়েবসাইট দ্রুত প্রোমোদ করার জন্য সাইটের প্রত্যেকটি পোস্ট অবশ্যই এসইও ফ্রেন্ডলি হওয়া আবশ্যক। এসইও ফ্রেন্ডলি পোষ্টের কোন বিকল্প নেই। ফ্রি ভিজিটর পাওয়ার সবচেয়ে ভালো ও গুরুত্বপূর্ণ উপায় হচ্ছে ওয়েবসাইটের সকল পোষ্ট এসইও ফ্রেন্ডলি করা।

এসইও ফ্রেন্ডলি পোষ্ট করার কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ:

গুগল র‍্যাংকিংয়ে দ্রুত আসার জন্য আপনাকে কষ্ট করে বড় করে আর্টিকেল লেখার চেষ্টা করতে হবে। কারণ, প্রথম পাতায় থাকতে হলে আপনার সাইটে বেশি তথ্য থাকতে হবে। তাই বেশি শব্দের পোস্ট বা আর্টিকেল লিখলে খুব সহজেই গুগল সার্চের প্রথমে আসা যায়।

তাই কমপক্ষে ১০০০ শব্দের বেশি করে পোস্ট লিখতেই হবে। তা না হলে সার্চ রেজাল্টে আসা আপনার জন্য খুবই কঠিন হয়ে যাবে। তবে আপনার পোস্ট যদি ২০০০-৫০০০ শব্দের হলে আপনি নিজে নিজে স্বপ্ন দেখতে পারেন। আপনি প্রথম ৫ টি সার্চ রেজাল্টের একটি হবেন। এমনকি আপনি হয়তো সার্চ রেজাল্টে প্রথমে থাকবেন। তাই ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিতে হলে, অবশ্যই আপনি ১০০০ এর বেশি শব্দ বা ২০০০ থেকে ৫০০০০ শব্দের আর্টিকেল লিখুন।

কিভাবে লিঙ্ক যুক্ত করে ফ্রি ভিজিটর বৃদ্ধি করবেন?

গুগল সার্চে আসার জন্য লিঙ্ক যুক্ত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ। আমি লিঙ্ক যুক্ত করে খুবই উপকৃত হয়েছি।

পোস্ট করার সময় দুই রকমের লিঙ্ক যুক্ত করতে হবে:

১. ইনবাউন্ড লিঙ্ক  ২. আউটবাউন্ড লিঙ্ক।

আপনার কোন পোস্ট যদি বর্তমানে গুগলের প্রথম পেজে নাও থাকে, যদি আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যথেষ্ট লিঙ্ক যুক্ত করে থাকেন। তাহলে একদিন না একদিন আপনি প্রথম পেজে ঠিকই চলে আসবেন।

লিঙ্ক করা মানে আপনার সাইটের বা অন্য সাইটের কোন পোস্টকে আপনার পোস্টের সাথে কানেকশন করিয়ে দেওয়া। যেমনঃ আমার এই পোস্টে অনেকগুলো লিঙ্ক দেওয়া আছে।

ইনবাউন্ড লিঙ্ক –

ইনবাউন্ড বা ইন্টার্নাল লিঙ্ক হচ্ছে আপনার নিজের ওয়েবসাইটের কোন পোস্ট কে আরেকটি পোস্টের সাথে যুক্ত করিয়ে দেওয়া।  অর্থাৎ আপনার বর্তমান পোস্টের সাথে আগের কোন একটা পোস্টকে যুক্ত করাই হচ্ছে ইনবাউন্ড লিঙ্কিং।

আউটবাউন্ড লিঙ্ক –

আপনার পোস্টের সাথে সম্পর্কিত অন্য ওয়েবসাইটের কোন আর্টিকেল বা পোস্টকে আপনার নিজের ওয়েবসাইটের পোস্টের সাথে যুক্ত করিয়ে দেওয়া কে আউটবাউন্ট লিঙ্ক বলা হয়।

লিঙ্ক যুক্ত করলে কি হয়?

লিঙ্ক করলে একটি ওয়েবসাইটের জন্য অনেক কিছুই হয় যা আপনি জানেন না। কোন ভিজিটর যখন সার্চ করে আপনার ব্লগে আসে তখন সে ভালো কিছু পেলে আপনার লেখাটি পড়বে। কিন্তু লেখা ভালো না হয়ে ব্যাক দিয়ে চলে যাবে। একজন ভিজিটর অনেক সময় নিয়ে ওয়েবসাইটে থাকলে অনেক কিছু লাভ হয়ে যায়। ভিজিটর যদি সাইটে বা ব্লগে বেশিক্ষণ থাকে, তখন গুগল এটা বুঝে নিতে চেষ্টা করে ওয়েবসাইটের এই লেখাটি অবশ্যই ভালো। এর ফলে লেখাটি আরও মানুষকে পড়ার সুযোগ করে দিতে আপনাকে সার্চ র‍্যাংকিংয়ে এগিয়ে দেয়। আর ভিজিটর যদি ভিজিট করে আবার ব্যাক করে আপনার ওয়েবসাইট থেকে বের হয়ে যায়, তাহলে গুগল আপনাকে আরও নিচের পাঠিয়ে নিয়ে যায়।

সুতরাং একাধিক লিঙ্ক থাকলে ভিজিটর ব্যাক দিয়ে সার্চ ইঞ্জিন বা গুগলে ফিরে যাওয়ার চান্স কম থাকে। ভিজিটর যদি কোন লিংকে ক্লিক করে গুগল সেটিকে এনগেজমেন্ট হিসেবে ধরে। গুগলে ধরে ভিজিটর তার প্রয়োজনীয় কিছু আপনার ওয়েবসাইটে খোঁজে পেয়েছে। তাই সে আপনাকে র‍্যাংকিংয়ে উপরে উঠিয়ে দেয়।

ইনবাউন্ড লিঙ্ক করলে আপনার ভিজিটর আপনার সাইটেরই অন্য আরেকটি পোস্ট পড়তে পারে। অথবা আরও বেশি পোস্ট পড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এতে আপনার পেজ ভিউজ বেড়ে যাবে। যা আপনার আয় আরো বাড়িয়ে দিবে। তাছাড়া আউটবাউন্ড লিঙ্ক করলে গুগল বুঝে নেয় আপনি খুব গুরুত্ব দিয়ে একাধিক তথ্য শেয়ার করে করে পোস্টটি লিখেছেন। এটি অবশ্যই ভালো পোস্ট। তাই এটি র‍্যাংকিং দিতে গুগল দ্বিধা করেনা। তাই অবশ্যই ইনবাউন্ড ও আউটবাউন্ড লিঙ্ক তৈরি করতে ভুল করবেন না।

কিভাবে অফ পেজ এসইও করে ফ্রি ভিজিটর পাবেন?

আমি যদি আপনাকে অফ পেজ এসইও এর কথা বলতে যায়, তাহলে আমাকে অবশ্যই বলতে হবে ব্যাকলিংক এর কথা। আপনার ওয়েবসাইট কে গুগলে বা সার্চ ইঞ্জিনে আরও বেশি কার্যকর করতে ব্যাকলিংক এর কোন বিকল্প দেখি না। আপনার পোস্টকে গুগল সার্চ এর প্রথম নিয়ে আসতে এটি অনেক বড় ভূমিকা রাখে।

গুগল সাজেশন মেনে চলুন:

আপনি যখন গুগলে কোনকিছু লিখে সার্চ করেন, তখন দেখতে পারবেন নিচে অনেক গুলো বিষয় সাজেস্ট করছে। গুগলে সার্চ করলে নিচে যে সকল সাজেশন দেখায়। এগুলো ও অনেকে প্রয়োজনীয়। এটার মানে হচ্ছে আরো অনেক লোক আছে যারা এইসব লেখা লিখে গুগলে সার্চ করে। তাই আপনি চেষ্টা করবেন পোস্ট রেলেটেড সেইসব টপিক নিয়ে আপনার পোস্টে লিখতে। তাহলে ভিজিটর গুগলে এসে কোন বিষয় লিখে সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইটটি দ্রুত সবার আগে চলে আসবে।

আপনি যদি উপরের নিয়মগুলো মেনে চললে আপনি অবশ্যই গুগলে এর প্রথম পেজে চলে আসবেন। আর আপনার ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর পাবেন।

Leave a Reply