অনলাইনে চাকরি করতে কি কি জানতে হবে – অনলাইন জব করার উপায় (2)
অনলাইনে চাকরি করতে কি কি জানতে হবে – অনলাইন জব করার উপায়

বিশ্বাস করুন! ভবিষ্যতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইলে অনলাইন জব করার উপায় আপনাকে জানতে হবে। পুরো পৃথিবীর মানুষকে লকডাউনের সময় বাড়িতে অবস্থান করতে হয়েছে। সবার উপার্জনের রাস্তা কমবেশি বন্ধ হয়েছিল। যারা ঘরে বসে কোনো উপার্জনের রাস্তা খোঁজে পাইনি, তাদের জীবন কিভাবে অতিবাহিত হয়েছে তারাই ভালো জানেন।

যারা অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা করেছে বা অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং নিয়ে কাজ করেছেন। তারাই লকডাউন চলা কালিন সময়ে সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়েছেন। আমাজন, আলিবাবা, ফেসবুক এবং ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসগুলোর কোম্পানিগুলোর প্রফিটের হার প্রায় 3X গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে লকডাউনের সময়। ভেবে দেখুন যদি আপনারও একটা অনলাইন ভিত্তিক প্লাটফর্ম বা দক্ষতা থাকতো, তাহলে আপনি চিন্তা ছাড়া ঘরে বসে উপার্জন করতে পারতেন।

অনলাইন জব করার উপায়
অনলাইন জব করার উপায়

জেনে নেওয়া যাক অনলাইন জব করার উপায়:

পৃথিবীতে যত রকমের দূর্যোগ আসুক। আমার মনে হয় না কখনও অনলাইন উদ্যোক্তাদের বসে থাকতে হবে। আপনি যদি ভবিষ্যতে নিজেকে কোন কাজের বাঁধা হিসেবে না দেখতে চান, তাহলে আপনার অবশ্যই অনলাইন জব করার উপায় জানতে হবে।

অনলাইন জব করার উপায় কেন জানতে হবে?

সহজ কথায়। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে নিজেকে বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য তৈরি করতে অনলাইন জব করার উপায় জানতে হবে। বর্তমান সময়ে প্রতিনিয়ত অনলাইনে কাজ করার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ডিজিটাল উদ্যোক্তা বৃদ্ধির কারণে চাকরি প্রত্যাশীদের অনলাইনে কাজ করার দক্ষতা প্রয়োজন।

অনলাইন জব করার উপায় কিভাবে জানতে পারবেন?

বর্তমানে অনেকগুলো সুনামধন্য কোম্পানি অনলাইন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে যাচ্ছে। তবে ভালো প্রতিষ্ঠান না চিনে প্রশিক্ষণ নিলেও আপনি অনেক বড় সমস্যায় পড়ে যাবেন। এজন্য আপনি নিজ থেকে সাবধান থাকবেন এবং সব তথ্য যাচাই করে প্রশিক্ষণ নিতে ভর্তি হবেন। সবচেয়ে ভালো হয় আগে কয়েকদিন ফ্রি ক্লাস করে ভালো মন্দ যাচাই করা।

কিছু জনপ্রিয় অনলাইন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান:

উক্ত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গুলো ছাড়াও বর্তমানে সুযোগ রয়েছে সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করার। আপনি যদি একটু চোখ কান খোলা রাখেন, তাহলে অনেকগুলো সুবিধা আপনি গ্রহণ করার সুযোগ পাবেন। বর্তমানে “লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট” হচ্ছে সরকারের অনেক বড় একটা প্রকল্প। এখানে গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট, ডিজিটাল মার্কেটিং সহ আরও অনেকগুলো জনপ্রিয় কোর্স চালু রয়েছে।

অনলাইনে চাকরি করার উপায় সম্পর্কে প্রশিক্ষণ নিতে কত টাকা খরচ হয়?

উপরে যে সকল প্রতিষ্ঠানের নাম আমরা আপনাদের জানিয়েছি। সবগুলো প্রতিষ্ঠানে কিছু কোর্স ফ্রি পাওয়া যায়। এসব প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে বিশ্বমানের জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান। টাকা দিয়ে এদের কোর্স করতে বড় একটা বাজেট প্রয়োজন হয়। “Repto” হচ্ছে বাংলাদেশের একটা অনলাইন ভিত্তিক ডিজিটাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। “রেফটো” এর কোর্সগুলো সবচেয়ে কম দামে করা যাবে। তবে আমি বলি, আপনি যদি একটু সময় নিয়ে চেষ্টা করেন, তাহলে ইউটিউব ও গুগল থেকে আপনি সবকিছু ফ্রি-তে শিখতে পারেন। বর্তমানে ইউটিউব ও গুগলের থেকে বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আমার মনে হয় না আর আছে।

অনলাইনে কাজ শুরু করার জন্য কি কি বৈশিষ্ট্য থাকা প্রয়োজন?

আমি নিজেই যেহেতু অনলাইনে কাজ করে প্যাসিভ ইনকাম করছি। তাই আমি আপনাদের পরামর্শ দেব। অনলাইনে কাজ শুরু করার জন্য আপনার ৩ টি বৈশিষ্ট্য থাকা প্রয়োজন:

  1. ইচ্ছা
  2. ধর্য্য
  3. দক্ষতা

আমি মনে করি, এই তিনটি বৈশিষ্ট্য আপনাদের থাকলে অবশ্যই অনলাইনে উদ্যোক্তা বা চাকরি করার সুযোগ পাবেন।

অনলাইন জব করার উপায় জেনে নিন:

উপরোক্ত আলোচনা গুলো যদি আপনি ভালো করে পড়ে থাকেন, তাহলে আপনি বুঝে গেছেন আপনাকে কি করতে হবে। অনলাইন জব করার জন্য আপনাকে প্রথমে চাকরি খোঁজে বের করতে হবে।

অনলাইনে ২ পদ্ধতিতে কাজ শুরু করতে পারেন:

  • নিজের প্লাটফর্ম তৈরী করে
  • অন্যের হয়ে কাজ করতে পারেন।

নিজের প্লাটফর্ম তৈরী করে কাজ শুরু করতে হলে আপনাকে একটা নিজের ব্রান্ডিং করতে ওয়েবসাইট করতে হবে। অন্যের হয়ে কাজ করতে আপনাকে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে আবেদন করতে হবে। যেমন:

  • ফ্রিলান্সার ডটকম
  • ফাইভার ডটকম
  • আপওয়ার্ক ডটকম
  • পিপলস পার আওয়ার ইত্যাদি।

আমি প্রতিনিয়ত এসব বিষয়ে খন্ড খন্ড করে আলোচনা করে যাবো:

আজকের লেখাটি মূলত সামান্য একটা বেসিক ধারণা। অনলাইনে আসার আগে এগুলো অবশ্যই জানা প্রয়োজন। তাই এটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আপনারা আমার সাথে সময় দেন, তাহলে আমি আপনাদের জন্য ভালো কিছু করতে চেষ্টা করবো। আমাকে কমেন্টে জানান আপনি আরও কি কি বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চান?

Leave a Reply